দ্রুত ওজন ও ভুঁড়ি কমানোর বিজ্ঞানসম্মত এবং প্রাকৃতিক উপায়

0
433

বর্তমান বিজি লাইফে প্রায় মানুষজন তাদের খাবার দাবার এবং শারীরিক ব্যায়ামের দিকে একদমই নজর দেয়না। যার ফলে দিনের পর দিন শরীরে চর্বি এবং মেদ বেড়েই যায়। এত ব্যাস্ত এবং টেনশন ভরা জীবনে ওজন কমানোর জন্য উপোস থাকা বা ডায়েট করা সবার জন্য সম্ভব হয়না।

সেজন্য যখন খাবার দাবার এর কথা আসে তখন মানুষ কোন কিছু না ভেবে আরামে খেয়ে যায়। সেই সাথে সাথে শরীরের চর্বি কমানোর জন্য সহজ কোন পদ্ধতির খোজে থাকে।

এমন পরিস্থিতিতে দিনে পরিবর্তে রাতেও যদি ওজন কমানোর পদ্ধতি পেয়ে যায় তাহলে শরীরের চর্বি কমানোর গতি দ্বিগুন হয়ে যায়। সেজন্য আজকে আমি আপনাদের বলবো রাতে কিভাবে দ্বিগুণ গতিতে ওজন কমানো যায় সেটার কার্যকরী ঘরোয়া উপায়। যেটা আপনার শরীরের ওজন কমানোর সাথে সাথে পরের দিন শরীরে অনেক এনার্জি দিবে। তাহলে চলুন জানি এটাকে কিভাবে বানাবেন।

এটা বানানোর জন্য আমাদের দরকার হবে

• তরমুজের ছোকলা
• খিরে,
• কচি ধনে পাতা
• দাঁড় চিনি
• আদা
• লেবু
• এবং আপেল।

প্রস্তুত প্রণালী

আপনি চাইলে আপেল এর জায়গায় টমেটোর ব্যবহার করতে পারেন। বেশিরভাগ মানুষ তরমুজ খেয়ে তার খোসা ফেলে দেয়। অনেক সময় আমরা আমাদের অপ্রয়োজনীয় গুলো জিনিস ফেলে দেই কিন্তু আমরা জানিনা যে ওটাই আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকার করে থাকে এবং আমাদের শরীরে চমৎকার পরিবর্তন এনে দিতে পারে।

পুরো তরমুজে সবচেয়ে বেশি পুষ্টিগুণ ওটার খোসায় রয়েছে। তরমুজের খোসার মধ্যে লাইকোফিন এবং ক্লোরোফিনের মাত্রা অনেক বেশি থাকে যেটা আমাদের রক্তকে পরিস্কার করে এবং পেটে জমা চর্বি অনেক দ্রুত কমাতে সাহায্য করে। এটাতে অধিক গুন থাকার জন্য অনেকে ভাজি করেও খায়৷ অনেক দেশে তরমুজের খোসাকে সালাদ বানিয়ে খায়। সেজন্য আপনি যদি সুস্থ থাকতে চান এবং পেটের চর্বি কমাতে চান তাহলে তরমুজের খোসা কখনোই ফেলবেন না।

তরজুমের শরবত প্রস্তুত করার জন্য এক বাটি তরমুজের খোসা নিন তারপর সেগুলো ছোট ছোট টুকরো করে মিক্সার এর মধ্যে দিয়ে দিন। এরপর তার মধ্যে মাঝারি সাইজের একটি খিরে কেটে দিয়ে দিন৷ এখানে আমাদেরকে পুরো সবুজ রঙের খিরা নিতে হবে। এরপর এর মধ্যে এক টুকরো আদা ছুলে দিয়ে দিন। এরপর এর মধ্যে পুরো সবুজ রঙের ধরে পাতা দিয়ে দিন। মনে রাখবেন ধনে পাতার গোড়া সহকারে দিবেন। এরপর এর মধ্যে ২ চামচ লেবুর রস, ১ চামচ দারুচিনির গুড়ো অর্ধেক আপেল টুকরো করে বা টমেটো ব্যবহার করতে চাইলে একটা টমেটো দিয়ে ভালো মত মিক্সিং করে নিন। এরপর হয়ে গেলে এটাকে ছেকে নিন আপনার ড্রিংক তৈরি হয়ে যাবে।

আপেলে ভিটামিন মিনারেল এবং Dietary fiber অনেক বেশি পরিমানে রয়েছে যেটা শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করে৷ সেই সাথে আপেলের ব্যবহারের ফলে এই ড্রিংকে ভালো ফ্রেভার নিয়ে আসে। স্বাদ আরো বাড়াতে আপনি অল্প তরমুজের ব্যবহারও করতে পারেন। এই ড্রিংটাকে আপনাকে সঠিক সময়ে খেতে হবে মানে রাতে ঘুমানোর ১ ঘন্টা আগে খেতে হবে।

এই ড্রিংটি বানানোর জন্য যে জিনিসগুলোর ব্যবহার করছি তার সবগুলো ব্যবহার করতে হবে এতে এটার গুন আরো বেড়ে যায়। এতে আমি দাঁড় চিনি এবং লেবু মিশিয়েছি কেননা এই দুটো জিনিসই শরীরে জমা চর্বিকে গলাতে সাহায্য করে৷ সেই সাথে তরমুজ এবং খিরা ঘুমানোর সময়ও আমাদের শরীরে এনার্জি প্রদান করে। যা ঘুমানোর সময়ও আমাদের শরীরে আরাম প্রদান করে এবং ওজন কমতে থাকে।

ওজন কমানোর উপায় ডায়েট

ওজন কমানোর উপায় ডায়েট

খাবার নিয়ম

এই ড্রিংকটাকে খাবার খাওয়ার আধা ঘন্টা পরে এবং ঘুমানোর ১ ঘন্টা আগে খেতে হবে। এটা খাবার পরে কিছু না খেয়েই ঘুমাতে হবে। আপনি যদি রাতে ঔষধ খান তাহলে এই ড্রিংক খাবার ১ ঘন্টা আগে বা পরে খাবেন।

উপকারীতা

এই জুসটি নিজে নিজেই অনেক পাওয়ারফুল ড্রিংক। এটাকে ১ সপ্তাহ খাবার পরে আপনি দেখবেন আপনার ওজন অনেকটা কমে গিয়েছে এবং সেই সাথে আপনার শরীরে এনার্জিও বেড়ে যাবে এবং শরীরে জোস এনে দিবে।

এই ড্রিংককে আরো ইফেক্টটিভ বানানোর জন্য এর মধ্যে পাংকশাক যুক্ত করতে পারেন। এছাড়াও আপনি চাইলে রাতের সাথে সাথে দিনেও এই শরবত ১ গ্লাস পান করতে পারেন। এই শরবতটাকে নিয়মিত ৭ দিন পান করার পরে আপনি আপনার শরীরে পরিবর্তন দেখতে পাবেন।

আশা করি আজকের এই হোম রেমিডি আপনার জন্য উপকার বয়ে আনবে।

Leave a reply